Connect with us

ইতিহাস

বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডে বিভিন্ন ফ্যাক্ট ও একটি আলোচনা

Published

on

বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডে বিভিন্ন ফ্যাক্ট ও একটি আলোচনা

স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৫ সালের ১৫ ই আগষ্ট এক মর্মান্তিক ঘটনায় স্বপরিবারে নিহত হন। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডে বিভিন্ন ফ্যাক্ট ও একটি আলোচনা

তাঁর এই হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি বাংলাদেশতো বটেই সারা বিশ্বের অন্যতম আলোচিত রাজনৈতিক হত্যাকান্ড হিসেবে পরিচিত।
কিন্তু এতো বড় একটা ঘটনা নিয়ে যতটা নিরপেক্ষ আলোচনা বা লেখালিখি হওয়ার দরকার ছিল ঠিক ততটা হয়নি,যেটুকুইবা হয়েছে তার অধিকাংশ ই অনিরপেক্ষ কিংবা রাজনৈতিক পক্ষপাতদুষ্ট।

বাংলাদেশে এই মর্মান্তিক হত্যাকাণ্ড নিয়ে যে কয়েকটি পুস্তক নিরপেক্ষতার মানদণ্ডে মোটামুটি প্রতিষ্ঠিত তার মধ্যে অন্যতম হল অধ্যাপক আবু সাইয়িদের – ‘ বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড ফ্যাক্টস্ এন্ড ডকুমেন্টস্

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড ফ্যাক্টস্ এন্ড ডকুমেন্টস্

অধ্যাপক আবু সাইয়িদ বইটিতে মুক্তিযুদ্ধ পূর্ববর্তী ঘটনাবলী থেকে শুরু করে স্বাধীনতা সংগ্রামের কথা,বঙ্গবন্ধুর পাকিস্তানের কারাগার থেকে মুক্তি লাভের কথা,৭২-৭৫ সালের বঙ্গবন্ধুর শাসন ব্যবস্থাসহ বিভিন্ন বিষয়ের আলোচনা করেছেন।
তবে নিঃসন্দেহে বইটির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিকটি হলো৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুর স্ব পরিবারে হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি।

বইটিতে লেখক বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার ক্ষেত্রে   অনেকগুলো ফ্যাক্টর কাজ করার বিষয়টি উল্লেখ করেছেন,যেমন-

ক.গণবাহিনী

অধ্যাপক আবু সাযিদ নিজের বইয়ের ১৩৫ নং পৃষ্ঠায় উল্লেখ করেছেন যে-
,”অন্য এক তথ্য হতে জানা যায়, শেখকে হত্যা করার পরামর্শ দেয় গণবাহিনীর নেতৃবৃন্দ। অভ্যুত্থান এক সঙ্গে যৌথভাবে ঘটানোর কথা ছিল কিন্তু মোশতাক চক্র পূর্বেই ঘটনাটি ঘটিয়ে ফেলে”।
অধ্যাপক সাহেব যে সূত্রের কথা বলেছেন সেটা হল আলোচিত বই-
WHO KILLED MUJIB,IBID,PAGE 38।

খ.মোশতাকগং-

১৯৭৪ সালের শেষের দিকে খন্দকার মোশতাক আফগানিস্তান ও ইরান সফরে যান। ইরানে তিনি চীনা নেতাদের সাথে বৈঠক করেন এবং সেই সফরেই জেদ্দায় পাকিস্তানি কর্মকর্তাদের সাথে ও বৈঠক করেন।
(ঐ- পৃষ্ঠা -৮৬)

গ.সেনাবাহিনীরএকাংশ-

বঙ্গবন্ধু হত্যার নেতৃত্বদানকারী ফারুক রশীদরা ১৯৭৩ সালের শেষ থেকেই নিজেদের কার্যক্রম শুরু করে।
তারই ধারাবাহিকতায় ঘাতকরা ১৯৭৪ সালের শেষ থেকেই নিজেদের পরিকল্পনা কার্যকর করার জন্য জাতীয় ও আন্তর্জাতিক যোগাযোগ স্থাপন করেছে।
ঘাতকদের ৭৫ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত চূড়ান্ত আঘাত হানার দু’টি নির্ধারিত সময়সূচী ছিল কিন্তু নানা কারনে সেসব বাস্তবায়ন করা যায়নি। সর্বশেষ ৭৫ সালের ১২ ও ১৫ ই আগষ্টের মধ্যবর্তী সময়কে বেছে নেওয়া হয় এবং সেনাবাহিনীর সে অংশটি সফলও হয়।
(ঐ- ৮০ও৮১ নং পৃষ্ঠা)

ঘ. সি আই এ সহ নানা মহল তৎপর ছিল-

দেশকে অস্থিতিশীল করা ও সশস্ত্র লড়াই সংগঠিত করতে জাসদ নেতৃত্ব সি আই এ এর লোক বলে কথিত জনৈক পিটার কাস্টারের নিকট হতে ৪০ লাখ টাকা গ্রহণ করে।
(ঐ- পৃষ্ঠা -৫৯)

ঙ-আওয়ামীলীগে উপদলীয় কোন্দল –

১৯৭৩ সালের জাতীয় নির্বাচনেরপরে পরই ক্ষমতাসীন আওয়ামিলীগের মধ্যে উপদলীয় কোন্দল চরমভাবে মাথা চাড়া দিয়ে উঠে যা – প্রকারান্তে বঙ্গবন্ধুর ভাবমূর্তিকে বহুলাংশে ক্ষুণ্ন করে।
( ঐ- পৃষ্ঠা ৬২)

চ- মনি- তোফায়েল গ্রুপের বিরোধ

কেন্দ্রে মনি- তোফায়েল উপদলীয় কোন্দলের বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে দেশের বিভিন্ন স্থানে, বিভিন্নভাবে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য ঘটনা ছিল চিকিৎসার জন্য বঙ্গবন্ধু রাশিয়ায় থাকাকালীন ১৯৭৪ সালের এপ্রিলে( তোফায়েল আহমেদ সমর্থিত শফিউল আলম প্রধান কর্তৃক) সূর্যসেন হলের ৭ জন ছাত্রের নৃশংস হত্যাকাণ্ড।এই হত্যাকাণ্ডের পরিপ্রেক্ষিতে তৎকালীন পররাষ্ট্র মন্ত্রী এম মুনসুর আলী বলেছেন,” এই পরিকল্পিত  ছাত্র হত্যা ছিল একটি গভীর ষড়যন্ত্রের অংশ।যার লক্ষ্য ছিল বঙ্গবন্ধুর সরকারের উৎখাত।
(ঐ- পৃষ্ঠা -৬২)

এমনকি শেখ ফজলুল হক মনি তোফায়েল আহমেদকে বিদেশী গুপ্তচর হিসেবেও উল্লেখ করেছেন।
( সূত্র- কনফিডেনসিয়াল ডায়েরি,বিক্রমাদিত্য,পৃষ্ঠা -৭)

ছ-আওয়ামীলীগ নেতাদের বিশেষ বাহিনী, লাল বাহিনীর জনগণের উপর অত্যাচার-

১৯৭৫ সালের ফেব্রুয়ারি ২১ তারিখের লড়াই নামক পত্রিকার ১ম সংখ্যার উপশিরোনাম ছিল এরূপ- “কোরবান আলীর ঘাতক বাহিনী” ‘ মুজিবরের নয়া মন্ত্রীসভার তথ্যমন্ত্রী কোরবান আলী তার এলাকায় একটা ঘাতক বাহিনী তৈরি করেছে।এলাকার দাগী আসামী,খুনী চোর ডাকাতদের দিয়ে গঠন করা হয়েছে এই বাহিনী।  শুধু কোরবান আলী নয়, ঢাকার গাজী গোলাম মোস্তফা থেকে শুরু করে বরিশালের হাসানাত পর্যন্ত সমস্ত আওয়ামী ও যুবলীগারদের নিজস্ব বাহিনী আছে’।
এই প্রসঙ্গে অধ্যাপক আবু সাইয়িদ বলেন-

” একথা অস্বীকার করার উপায় নেই যে,জেলায় জেলায় ক্ষমতাসীন চিহ্নিত আওয়ামিলীগ নেতাদের বিশেষ বিশেষ বাহিনী, লাল বাহিনী জনগনের উপর অত্যাচার চালিয়েছে।তাদের সন্ত্রাসে জনগণ প্রতিবাদহীন আক্রোশে হয়েছে নির্বাক নিশ্চুপ।”

(ঐ- পৃষ্ঠা -৬২)

 

এগুলো ছাড়াও রক্ষী বাহিনী, ভারতের সাথে চুক্তি,দুর্ভিক্ষ, সেনাবাহীনির সাথে দূরত্ব, আন্তর্জাতিক রাজনীতিসহ নানা বিষয় বঙ্গবন্ধুর হত্যারকাণ্ডে ফ্যাক্ট হিসেবে কাজ করেছে।

কিছু একটা ঘটবে সে সস্পর্কে অনেকেই জ্ঞাত থাকা

বঙ্গবন্ধুর সরকার যখন ধীরে ধীরে অজনপ্রিয়তার দিকে চালিত হচ্ছিলো, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি চরম অবনতির দিকে ধাবিত হচ্ছিলো তখন “কিছু একটা ঘটবে” এমন বিষয়টি সম্পর্কে অনেকেই জ্ঞাত ছিলেন।
তবে ” কিছু একটা ঘটা” যে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা সে সম্পর্কে বোধকরি কেউই ভাবতে পারেন নি।
খন্দকার মোস্তাক বাদে বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচরেরা সে বিষয়ে কে কতটুকু জ্ঞাত ছিলেন সে বিষয়ে আলোচনা করা হলো।

ক- জনাব কামরুজ্জামান সাহেবের জ্ঞাত থাকা-

ফেক্টস এণ্ড ডকুমেণ্টস ভইয়ের লেখক অধ্যাপক আবু সাইয়িদ সাহেব নিজের বইয়ের ২৮৩ নং পৃষ্ঠায় বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রীসভা ও পরবর্তীকালের খন্দকার মোশতাকের মন্ত্রীসভার অন্যতম সদস্য জনাব অধ্যাপক ইউসুফ আলীর একটি সাক্ষাতকার ছাপিয়েছেন।
সেখানে অধ্যাপক ইউসুফ আলী বলেন যে –

“হেনা ভাই(মন্ত্রী এ এইচ এম কামরুজ্জামান)আমাকে জানান বঙ্গবন্ধু হত্যার আগে হেনা ভাইয়ের তিন নম্বর রোডের( ধানমণ্ডির) বাসায় ডালিম তাঁর সাথে দেখা করতে গিয়েছিল।ডালিম তাঁকে ডেকেছে।হেনা ভাই নামেননি।হেনা ভাই বললেন, ডালিম আমার সাথে আগেও যোগাযোগ করেছিল এবং প্রস্তাবও নিয়ে এসছিলো।তাই জানতাম,সে কি কথা বলতে এসেছিল।তাই দরজা খুলিনি।
হেনা ভাই আমাকে বললেন,”ডালিমরা জানিয়েছিল এ রকম একটা ঘটনা ঘটবে।বঙ্গবন্ধুকে খুন করা হবে তা বলেনি তবে তাকে বাসা থেকে নিয়ে যাওয়া হবে এবং  আবার হেনা ভাইয়ের নেতৃত্বে পাওয়ার( ক্ষমতা) নেওয়া হবে।হেনা ভাই আমাকে বললেন,আমি তাতে তখন রাজি হয়নি।১৪ আগষ্ট তারিখে তাই নীচে নামিনি।ডালিম পরে গালাগালি করে চলে যায়”।

খ- জনাব সৈয়দ নজরুল ইসলাম সাহেবের জ্ঞাত থাকা-

একই সাক্ষাতকারের শেষের দিকে ইউসুফ আলী সাহেব বলেন যে,আগষ্টের ১৩ বা ১৪ তারিখে তিনি তৎকালীন ভাইস প্রেসিডেন্ট ও জেলহত্যার অন্যতম শহীদ জনাব  সৈয়দ নজরুল সাহেবের বাসায় গিয়ে সেখানে তাঁকে ভীষণ রাগান্বিত অবস্থায় দেখতে পান।
উল্লেখ্য বঙ্গবন্ধু সবাইকে তুমি করে সম্বোধন করলেও সৈয়দ নজরুল ইসলামকে আপনি বলে সম্বোধন করতেন।
ইউসুফ সাহেব যখন জিজ্ঞেস করলেন স্যার কী হয়েছে জবাবে সৈয়দ সাহেব জানালেন-

” আমার কাছে লোক আসছিলো আমার কাছে পাওয়ার নেবার প্রস্তাব নিয়ে আসছিলো “

( ফ্যাক্টস এণ্ড ডকুমেন্টস, পৃষ্ঠা -২৮৬)

” আমি ( ইউসুফ সাহেব) বললাম, ৩২ নাম্বার যান সেখানে গিয়ে বঙ্গবন্ধুর সাথে কথা বলেন। দেখেন কী করতে পারেন”।

” সৈয়দ সাহেব বললেন, না তিনি(বঙ্গবন্ধু)  যখন সব কথা খুলে বলতে চাননা,তখন আর কী করবো”।

“তখন আমি বললাম, আজকে যাবেন? তিনি বললেন না। তারপর ঠিক হলো পরদিন উনি যাবেন। সে সুযোগ আর হয় নাই”

গ- সেনাবাহিনীর সিনিয়র নেতৃত্বের অবগত থাকা-

৭৫ সালের ১৫ ই আগষ্টের রক্তাক্ত অধ্যায়ের পর১৯শে আগষ্ট সেনা প্রধান ঢাকাসেনাসদরে
একটি কনফারেন্স ডাকেন।সেখানে ফারুক রশীদ উপস্থিত হয়ে ( কথিত) অভ্যুত্থান সম্পর্কে বিশদ ব্যাখ্যা প্রদান শুরু করেন।রশীদ নিজেদের কর্মের ব্যাখ্যায় একটা পর্যায়ে বলে উঠেন,” সেনাবাহিনীর সব সিনিয়র অফিসার এই অভ্যুত্থানের কথা আগে থেকেই জানতেন, এসনকি ঢাকা বিগ্রেড কমাণ্ডারও।”
রশিদ দাবি করলেন যে,প্রত্যেকের সঙ্গে তাদের আলাদা আলাদা সমঝোতা হয়েছে পূর্বেই।তখন উপস্থিত সিনিয়র কোন অফিসারই এর প্রতিবাদ করেননি।একটি শব্দও উচ্চারণ করেননি কেউ।
উল্লেখ্য সে বৈঠকে সেনা প্রধান শফিউল্লাহ সাহেব,উপ সেনা প্রধান জিয়াউর রহমান সাহেব এবং সিজিএস বিগ্রেডিয়ার জনাব খালেদ মোশাররফ সহ সিনিয়র অফিসারবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
কিন্তু ঢাকা পতাদিক ব্রিগেডের আধিনায়ক কর্ণেল সাফায়েত জামিল রশিদের বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ করে বলে উঠেন

” You are all liars,mutineers and deserters, you are all murders.Tell your Moshtaque that he is an unsurper and a conssipirator.
He is not my president. In my first opportunity I shall dislodge him and you all will be tried for your crimes”.

( ঐ- পৃষ্ঠা -৩১৪)

বইয়ের ৮১ নং পৃষ্ঠায় উল্লেখ রয়েছে যে ঘাতকরা ১৯৭৪ সালের শেষ থেকেই নিজেদের পরিকল্পনা কার্যকর করার জন্য জাতীয় ও আন্তর্জাতিক যোগাযোগ স্থাপন করেছে।
তাহলে আমরা বুঝতে পারলাম যে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা বা গ্রেফতার করার পর ক্ষমতা রাজনৈতিক নেতৃত্বের কাছে রাখার জন্য সেনাবাহিনীর একাংশ (যারা এই কর্মটি সাধন করেছে) বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর ও তৎকালীন মন্ত্রী জনাব কামরুজ্জান, উপরাষ্ট্রপতি জনাব সৈয়দ নজরুল ইসলাম সহ বিভিন্ন জনের কাছে গিয়েছিল। সেই সুবাদে বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচরেরাও বিষয়টি জানতেন কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য তাঁরা কেউই বঙ্গবন্ধুকে বিষয়টি অবহিত করেননি কিংবা করার সুযোগ পাননি কিংবা অবহিত করা সত্ত্বেও বঙ্গবন্ধু বিষয়টি তেমন গুরুত্ব দেননি।

বর্তমান সময়ে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ড নিয়ে আলোচনায় এসব বিষয়ে তেমন উল্লেখ থাকেনা বললেই চলে বরং একটি স্রোতেই মর্মান্তিক এই ইতিহাসকে প্রবাহিত করার চেষ্টা পরিলক্ষিত করা হচ্ছে।

এতে করে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডটি কেবল রাজনীতিক ফায়দা হাসিলেরই মাধ্যমই হচ্ছে, নতুন প্রজন্ম সঠিক ইতিহাস জানা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। সবকিছু জনা সম্পর্কে প্রজন্মকে দূরে সড়ানো হচ্ছে।

আমরা চাই বিশদ আকারে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ড নিয়ে আলোচনা হউক।নির্দিষ্ট কোন দৃষ্টিকোণ কিংবা রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলের আলোচনা না হউক।বঙ্গবন্ধুর বিশালতাকে কুক্ষিগত করে না রাখার জন্য এসব আলোচনা অত্যন্ত জরুরী। বঙ্গবন্ধু কোনো দলীয় সম্পদ নয় বরং তিনি সবার। তিনি বাংলাদেশের। তাঁর সম্পর্কে বিশদ আলোচনা করাই হচ্ছে তাকে প্রকৃত শ্রদ্ধা আর সম্মান দেখানো।

আমাদের রাজনৈতিক নেতৃত্ব যত তাড়াতাড়ি বিষয়টি হৃদয়ঙ্গম করবেন ততই জাতির জন্য মঙ্গল জনক হবে।

প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।

ইতিহাস

প্রতিনায়ক ও রহস্য পুরুষ সিরাজুল আলম খান

Published

on

রহস্য পুরুষ সিরাজুল আলম খান

সিরাজুল  খানের সাথে এদেশের অধিকাংশ নবীন পাঠকের পরিচয় ঘটে মহিউদ্দিন আহমদের” জাসদের উত্থান পতন,অস্থির সময়ের রাজনীতির ” বইটির  মাধ্যমে।এতো বিশাল পরিমাপের একজন রাজনীতিবিদ সংগঠক কিন্তু আমাদের দেশীয় ইতিহাসে তাঁকে নিয়ে খুব কমই আলোচনা হয়েছে অন্তত আমার চোখে খুব বেশি পরিলক্ষিত হয়নি।পাঠকের সাথে আরেকটু ভালো করে পরিচয় ঘটে “আমি সিরাজুল আলম খান বলছি” বইটির মাধ্যমে।

বাংলাদেশে নামক রাষ্ট্রটির বিস্ময়কর  উত্থান হলাে একটি জনগােষ্ঠীর জেগে ওঠার মহাকাব্য। এর প্রতিটি  পরতে আছে যুগ যুগ ধরে মানুষের সংঘবদ্ধ  সংগ্রাম।সেই যুথবদ্ধ প্রয়াসে রয়েছে অনেক কারিগর, অনেক বীর। সিরাজুল আলম খান তেমনই একজন,একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র, যিনি শ্রম-ঘাম-মেধা দিয়ে বাংলাদেশের উত্থানপর্বে নিজেকে সমর্পণ করেছিলেন।গড়ে তুলেছিলেন নিজের সংগঠনিক মেধা দিয়ে বিশাল কর্মী বাহিনীর এক সুবিন্যস্ত নেটওয়ার্ক।

বঙ্গবন্ধুর এই যে উত্থান বা এদেশের মানুষের কাছে তাঁকে পৌঁছানো সেটার অন্যতম কারিগর ছিলেন সিরাজুল আলম খান,যার সাংগঠনিক মেধা আর সক্ষমতায় বঙ্গবন্ধু গুণমুগ্ধ হয়ে তাকে  সুপারম্যান আখ্যা দিয়েছিলেন।বাংলাদেশ ছাত্রলীগের অভ্যন্তরে যার ছিল আরেকটি নিজস্ব একটি বলয় যেটাকে পরবর্তীতে ইতিহাস নিউক্লিয়াস নামে আবিস্কার করেছে। নিউক্লিয়াস, মুজিব বাহিনী, জাসদ কিংবা পঁচাত্তরের নভেম্বরের অভ্যুত্থান,বিপ্লব কিংবা রাজনৈতিক পটপরিবর্তন সবগুলোর সাথেই ছিল তাঁর একান্ত নিবিড় যোগাযোগ। কিন্তু জনসম্মুখে খুব কমই আসতেন কাজ করতেন পিছনে থেকে।আর এই কারনেই হয়তো পাওয়ার পলিটিক্সে কখনোই প্রবেশ করেননি।

যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা শেখ মনি ছিলেন তাঁর খুব কাছের বন্ধু,দুজনের মধ্যে রাজনৈতিক আদর্শের সুক্ষ্ম বিরোধ ছিল,বিরোধ ছিল চলার পথটিও নিয়েও তবে সেসব বিরোধ ব্যক্তিগত সম্পর্কে কখনোই চিড় ধরেনি।

সিরাজুল আলম খানের নায়ক বা গুরু  ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব। মুজিবে মােহমুগ্ধ ছিলেন তিনি। একসময় তিনি বিদ্রোহ করলেন।ভাঙ্গন ধরলো গুরু শিষ্যের সম্পর্কে তাই বলে সিরাজুল আলম খানের জন্য বঙ্গভবন বা ধানমন্ডির ৩২ নম্বরের দরজা কখনোই বন্ধ ছিল না,সর্বদা খোলাই ছিল।

সর্বহারা গ্রুপের সিরাজ সিকদারকে যখন ক্রসফায়ারে দেওয়া হলো বঙ্গবন্ধু আপন শিষ্য সিরাজুল আলম খানকে বললেন,” তুই দেশ ত্যাগ কর”।গুরুর আদেশ মেনেই দেশ ত্যাগ করে ভারতে চলে গেলেন।স্বাধীনতা পূর্ব এবং উত্তর সময়ে বঙ্গবন্ধুর পরে সবচেয়ে জনপ্রিয় সংগঠক হিসেবে সিরাজুল আলম খানের নাম বললে একটুও অত্যুক্তি হবে না কিন্তু রাজনীতির সঠিক সময়ে সঠিক কাজটি না করতে পারা কিংবা স্থিরতার বড্ড অভাব বা অনীহার কারনে ক্ষমতার হালুয়া রুটির ভাগ বসাতে আসেননি।অনেকটা সমরেশ বাবুর কালবেলা- কালপুরুষের অনিমেষের মতন। সঙ্গীদের চোখে তিনি হলেন প্রতিনায়ক। তৈরি হলাে তাঁর কাল্ট। অর্থশাস্ত্রে মার্জিনাল ভ্যালু বা প্রান্তিক উপযােগিতার তত্ত্ব আছে। কালের পরিক্রমায় সঙ্গীরা একে একে তাঁকে ত্যাগ করায় তার প্রান্তিকমূল্যমান ঠেকে শূন্যের কোঠায়।

যার হাত ধরে এদেশে অসংখ্য অসংখ্য নেতৃত্ব, নেতা,মন্ত্রী, এমপি সৃষ্টি হয়েছে,যার সান্নিধ্যে থাকা অসংখ্য লোক দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকে দেশকে সেবা দিয়েছে সেই মহাগুরুত্বপূর্ণ লোকটি এখন ‘রেচিড অব পলিটিকস’—রিক্ত, পরিত্যক্ত।এটা যতটানা বাস্তবতার পরিপ্রেক্ষিতে তারচেয়ে বেশি নিজের খাম খেয়ালিপূর্ণ মনোভাবের কারনে।

তাঁর হাত ধরেই উঠে এসছিল আজকের হাসানুল হক ইনুর মতন অসংখ্য জাদেরেল রাজনীতিবিদরা।হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালার মতন একদা তাঁকে ঘিরে যারা বিপ্লবের মন্ত্র জপেছিলেন, তাঁদের বেশির ভাগ এখন দলীয় রাজনীতি থেকে অবসরে। বাকিরা নানান শিবিরে বিভক্ত। একদা স্বপ্নবাজ অ্যাংগ্রি ইয়াংম্যানরা’ এখন ইতিহাসের জাবর কাটেন।

তবে তাঁর সমালোচনাও করে থাকেন কেউ কেউ,হাজার হাজার স্বপ্নবাজ তরুনকে স্বপ্ন দেখিয়ে তাদেরকে বিপদগামী করেছেন,একটা সময়ে তাদেরকে ত্যাগও করেছেন।স্বাধীনতার পরবর্তীতে যে কয়েকটি ঘটনা দেশের রাজনীতির মোড় পরিবর্তন করে দিয়েছিল সেটার অন্যতম হল ১৯৭৪ সালের ১৭ মার্চের তৎকালীন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী এম মনসুর আলীর সরকারী বাসভবন ঘেরাওর ঘটনা।রহস্যময় উক্ত ঘটনায় ৫০ জন জাসদ কর্মী সেখানেই মৃত্যু বরণ করেন যদিও সরকারি হিসেবে আরো কম।সেই ঘটনার পরেই জাসদ আর নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতিতে থাকতে পারেনি বরং আন্ডারগ্রাউন্ডে আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়েছিল।১৭ তারিখের এই ঘটনাটি নাহলে হয়তো বাংলাদেশের রাজনীতির ইতিহাস ভিন্নতর হতে পারতো।কিন্তু হয়নি কিংবা যেভাবে হওয়ার সেভাবেই হয়েছে।

ইতিহাসের এই নায়ক কিংবা প্রতিনায়ক নিজের শেষ ইচ্ছের কথা জানিয়েছেন এইভাবে-

“আমার মৃত্যুর পর কোনো শােকসভা হবে না। শহীদ মিনারে ডিসপ্লে হবে না লাশ। যত দ্রুত সম্ভব নােয়াখালীর বেগমগঞ্জে আমার গ্রামের বাড়িতে পাঠাতে হবে মরদেহ, যা ঢাকা থাকবে একটা কাঠের কফিনে। মায়ের একটা শাড়ি রেখে দিয়েছি। কফিনটা শাড়িতে মুড়ে মাটিতে পুঁতে ফেলতে হবে, মায়ের কবরে।”

মহিউদ্দিন আহমদেকে ধন্যবাদ ইতিহাসের জীবন্ত এই কিংবদন্তিকে আলোচনায় নিয়ে আসার জন্য। রহস্যময় এই মানুষটির প্রতি শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা।

প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।

Continue Reading

ইতিহাস

ইন দ্যা লাইন অব ফায়ার ও এ সম্পর্কে পাঠ প্রতিক্রিয়া

Published

on

ইন দ্যা লাইন অব ফায়ার ও এ সম্পর্কে পাঠ প্রতিক্রিয়া
পৃথিবীতে সব মানুষই নিজের কাজকর্মকে যৌক্তিক মনে করে থাকেন।পাকিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট জেনারেল পারভেজ মোশাররফ ও সেটার ব্যতিক্রম নন।তাঁর লেখা ‘ইন দ্যা লাইন অব ফায়ারে’নিজের সব কাজকেই তিনি যৌক্তিকতার কালিতেই ব্যখ্যা করেছেন। বইটিতে নিজের শৈশব থেকে একেবারে পাকিস্তানের সর্বোচ্চ ব্যক্তি হওয়ার যে ঘটনা প্রবাহ সেটার একটা ধারাবাহিক বর্ননা দিয়েছেন।ফলে রাষ্ট্র গঠনের পর থেকে পাকিস্তানের সকল শাসক,সামরিক বাহিনী ও রজনীতিতে তাদের অংশগ্রহণের বিস্তারিত একটা বর্ননা রয়েছে। বইটিকে আমার কাছে পারভেজ মোশারফের এক ধরণের কৈফিয়ত দেওয়া মনে হয়েছে।তাঁর বিরুদ্ধে আনীত সকল সমালোচনা বা অভিযোগের একটা জবাব তিনি বইটিতে দিয়েছেন। এতো বিশাল বইয়ে তাঁর আলোচিত যে বিষয়গুলো নিয়ে আমি আলোচনা করবো সেগুলো হলো- ১- আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে তাঁর দৃষ্টিভঙ্গি – ২- তাঁর সেনাপ্রধান হওয়া – ৩-কারগিল যুদ্ধ ও যুদ্ধ নিয়ে তাঁর বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ- ৪- সেনা প্রধান থেকে রাষ্ট্র প্রধান হিসেবে আর্বিভূত হওয়া- ৫-যে পরিস্থিতে ৯/১১ পরবর্তী আমেরিকার দোসর হয়ে তালেবান ও আল-কায়দা বিরোধী যুদ্ধে শামিল হওয়া- ৬-পরমাণু অস্ত্র ও সেটার জনক আবদুল কাদির খানকে গৃহবন্দী করা-

মহান মুক্তিযুদ্ধ

আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা প্রাপ্তির বিষয়টি তিনি পশ্চিম পাকিস্তানী রাজনীতিবিদ বিশেষ করে জুলফিকার আলী ভুট্টাে ও কয়েকজন সেনা কর্মকর্তার অপরিনামদর্শী কর্মকান্ডের ফলাফল সেই সাথে পিছন থেকে ভারতের ছুরি চালানোর বিষয় হিসেবে ব্যাখ্যা করেছেন।বাংলাদেশীদের প্রতি করা বৈষম্যের বিষয়টিও তিনি স্বীকার করেছেন। আবদুল্লাহ খান নিয়াজি নিজের “দ্যা বিট্রেয়াল অব ইস্ট পাকিস্তান” বইতেও পাকিস্তান ভাঙ্গার পিছনে পশ্চিম পাকিস্তানের রাজনীতিবিদদের দায় দেখেছেন। তিনি বারবারই বলার চেষ্টা করেছেন সমস্যাটা ছিল রাজনৈতিক সুতরাং সমাধানটা রাজনৈতিকভাবেই হওয়া দরকার ছিল।রাজনৈতিক সমস্যাবলী সামরিকভাবে কখনোই টেকসই সমাধান আনতে পারে না। নিযাজি বা পারভেজ মোশাররফ কিংবা পাকিস্তানের সাধারণ জনগন সবাই ই একটা বিষয়ে একমত যে,পাকিস্তান ভাঙ্গার পিছনে ভারত ব্যাপক ইন্ধন যুগিয়েছে। মুনতাসীর মামুনের  “পাকিস্তানি জেনারেলের মনোভাব “বইটিতেও এমন বক্তব্যই দেখতে পাই। ভারতকে পিছন থেকে ছুরি চালানোর সুযোগটি পশ্চিম পাকিস্তারের মাথামোটা রাজনীতিবিদরাই করে দিযেছে।নিয়াজী কিংবা পারভেজ মোশাররফ তাঁরা কেউই এটাকে সামরিক বিপর্যয় হিসেবে মানতে নারাজ তারা বরং এটাকে রাজনৈতিক বিপর্য়য় হিসেবেই উল্লেখ করতে আগ্রহী। ১৯৭১ সালের ১৬ ই ডিসেম্বরের পাকিস্তানিদের পরাজয়ের বিষয়টি তৎকালীন সেনা সদস্যদের আজও ব্যথিত করে। এখানে একটা বিষয় উল্লেখ্য,সাম্প্রতিক সময়ে পাকিস্তানের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানও পাকিস্তান ভাঙ্গার জন্য তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্তানের রাজনীতিবিদদেরই দোষারোপ করেছেন। আমরা প্রত্যাশা করবো শুধু দোষারোপ ই নয় তাদের এই জুলুম অত্যাচার আর নিপিড়নের জন্য রাষ্ট্রীয়ভাবে বাংলাদেশের নিকট ক্ষমা চাইবেন তাহলেই  তাদের প্রকৃত অনুভব আর অনুভূতির বিষয়টি প্রকাশ পাবে।

সেনা প্রধান হওয়া

১৯৯৮ সালের ৭ ই অক্টোবর সন্ধ্যায় হুট করেই পারভেজ মোশাররফকে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী নেওয়াজ শরীফ ডেকে পাঠান।তখনই তিনি জানতে পারেন যে জেনারেল জাহাঙ্গীর কারামতকে অবসরে পাঠিয়ে তাঁকে সেনা প্রধান করা হয়েছে।কয়েকদিন আগে সংবিধান সংশোধনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী একক কর্তৃত্ববলে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়ার সক্ষমতা অর্জন করেছেন। ভারত থেকে বাস্তুভিটা হারিয়ে এক মোহাজির পাকিস্তানের সেনা প্রধান হওয়াটা এক আশ্চর্যের বিষয় ই বটে।কোন অভিজাত পরিবারের না হওয়া ও এই মোহাজির পরিচিতির কারনেই নওয়াজ শরীফ হয়তো ভেবেছিলেন তাকে যেভাবে ইচ্ছে সেভাবেই পরিচালিত করতে পারবেন।কিন্তু কয়েক মাসের মধ্যেই নেওয়াজ শরীফের করা সে ধারণাটি ভুল প্রমানিত হয়। প্রথম দিকে প্রধানমন্ত্রীর সাথে ছোটখাটো সমস্যা বা বিরোধ দেখা দিলেও কারগিল যুদ্ধ ও তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটনের কাছে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নেওয়াজ শরীফের সৈন্য সমর্পনের ঘোষণা দেওয়ার মাধ্যমে সেটা প্রকট আকার ধারণ করে।

কারগিল যুদ্ধ ও যুদ্ধ সম্পর্কিত অভিযোগ

ইন দ্যা লাইন অব ফায়ার ও এ সম্পর্কে পাঠ প্রতিক্রিয়াকারগিল হল পাকিস্তানের উত্তর সীমান্তের বরফাবৃত দুর্গম পাহাড়ি অঞ্চল।এখানে ভারত ও পাকিস্তানের সীমান্তবর্তী নিয়ন্ত্রণ রেখা রয়েছে।১৯৭১ সালের সিমলা চুক্তির মাধ্যমে এই সীমান্ত রেখা চিহ্নিত করা রয়েছে যদিও ভারতীয় সেনারা সুযোগ পেলেই সেটা অতিক্রম করতো। ১৯৯৯ সালের মে মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে কারগিল সীমান্তে ভারত পাকিস্তানের সেনাদের মধ্য সংঘর্ষ বাঁধে এবং একটা পর্যায়ে পাকিস্তানের সেনারা স্থানীয় স্বাধীনতাকামীদের নিয়ে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাস্মীরের ৫০০ বর্গমাইলের অধিক এলাকা দখল নেয়। (মুসকোতে ২৫০ বর্গ মাইল,ড্রাসে ৪০বর্গ মাইল,কাকসারে২০ বর্গ মাইল, বাট্টালিকে ৮০ বর্গ মাইল এবং শিওক এলাকায় ২৩ বর্গ মাইল)। পুরো মে-জুন জুড়ে সীমান্তে উত্তেজনা বিরাজ করতে থাকে। ভারতের তুলনায় পাকিস্তানী সেনাদের তুলনামূলক সুবিধাজনক অবস্থান থাকা সত্ত্বেও প্রধানমন্ত্রী নেওয়াজ শরীফ  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সফরে গিয়ে তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটনের কাছে আকস্মিকভাবে পাকিস্তানের আত্মসমর্পনের ঘোষণা দেয়।ফলে সেনা প্রধান পারভেজ মোশাররফ ও প্রধানমন্ত্রীর নেওয়াজ শরীফের মধ্যকার সম্পর্কের ব্যাপক তিক্ততা সৃষ্টি হয়। কারগিল যুদ্ধকে কেন্দ্র করে সেনাপ্রধান পারভেজ মোশারফের  বিরুদ্ধে চারটি অভিযোগ উত্থাপিত হয়। যার প্রথমটি হল,’রাজনৈতিক নেতৃত্বের আগোচড়ে সেনাবাহিনী যুদ্ধে জড়িয়েছে’,এর জবাবে পারভেজ মোশাররফ বলেন সীমান্তে ভারতীয় ব্যাপক সেনা সমাবেশের বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীকে ৯ ই জানুয়ারি,৫ ফেব্রুয়ারি,১২ ই মার্চ ব্রিফ করা হয়।এমনকি যুদ্ধ চলাকালে ১৭ মে,২ রা জুন ও ২২ জুন ও প্রধানমন্ত্রীকে ব্রিফ করা হয়। দ্বিতীয়টি হল,’ পাকিস্তানের সেনাদের অবস্থান নাযুক দেখেই প্রধানমন্ত্রীকে ওয়াশিংটন ছুটে যেতে হয়েছিল’।জবাবে তিনি বলেন,২রা জুলাই সেনা প্রধান নিজে প্রধানমন্ত্রীকে পরিস্থিতি ব্রিফ করে পাকিস্তানী সেনাদের সুবিধাজনক অবস্থানে থাকার বিষয়টি অবহিত করেছেন।তখন পুনরায় ৫ জুলাই পরবর্তী মিটিং হওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।কিন্তু হুট করেই প্রধানমন্ত্রী ৩ রা জুলাই আমেরিকার ফ্লাইট ধরেন। তৃতীয়টি হল,’সেনাবাহিনীর উর্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ এই যুদ্ধ সম্পর্কে জানতেন না’।এর জবাবে তিনি বলেন উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা বৃন্দ এই যুদ্ধ সম্পর্কে বেশ ভালোভাবেই জ্ঞাত ছিলেন।কারন তাদের অজ্ঞাতে এতোবড় অভিযান অকল্পনীয়। চতুর্থটি হল, ‘উভয় দেশকে পরমানু যুদ্ধের মুখোমুখি দাঁড় করানো’।এটারও জবাব তিনি দিয়ে বলেন তখনও পর্যন্ত পাকিস্তান পুরোপুরি পরমানু অস্ত্রের কার্যকর অবস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়নি।

সেনাপ্রধান থেকে রাষ্ট্র প্রধান

সেনাপতি পারভেজ মোশাররফ রাষ্ট্রীয় এক সফরে কলম্বো ছিলেন। ১৯৯৯ সালের ১২ অক্টোবর তিনি পাকিস্তানে ফেরার পথে  বিমান যখন আকাশে তখনই জানতে পারেন যে তাঁর পাকিস্তানে ফেরত আসার ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।কন্ট্রোল রুম থেকে তাঁর বিমানের পাইলটকে পাকিস্তান আর দুবাই ছাড়া পৃথিবীর যেকোন দেশে বিমান অবতরন করতে বলা হয়। সন্ধ্যার এই ফ্লাইটিতে তিনি ছাড়াও আরো ১৯৮ জন বেসামরিক যাত্রী ছিল। বিমান যখন মাঝ আকাশে তখনই তাঁকে সেনা প্রধান থেকে অবহ্যতির ঘোষণা দিয়ে নতুন সেনা প্রধান হিসেবে লেফটেন্যান্ট জেনারেল জিয়াউদ্দিন বাটের নাম ঘোষণা করা হয়। কিন্তু পারভেজ মোশাররফের অনুগত সৈনিক আর অফিসাররা তাদের সেনা প্রধানের বিরুদ্ধে এমন অবিচার মেনে নেয়নি। তারা দ্রুতই করাচী বিমান বন্দর সহ প্রধানমন্ত্রীর ভবন,রাষ্ট্রপতির ভবন,রেডিও টেলিভিশনের নিয়ন্ত্রণ নেয় এবং নওয়াজ শরীফকে উৎখাত করে পারভেজ মোশাররফ কে ক্ষমতার মসনদে বসায়। ক্ষমতাচ্যুত নেওয়াজ শরীফের অনুরোধে তাকে নিজ পরিবার সহ সৌদি আরবে নির্বাসনে পাঠানো হয়। আর এভাবেই নাটকীয় ভাবে দেশভাগের রিফিউজি এক শিশু ৫২ বছর পরে দেশের সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর ব্যক্তিতে পরিণত হন।

যেভাবে আমেরিকার দোসর ও আলকায়দা বিরোধী অবস্থান নেওয়া

৯/১১ যখন আমেরিকায় ভয়ংকর সন্ত্রাসী হামলা হলো তখন পারভেজ মোশাররফ করাচীতে কায়েদা আযম মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর সমাধি সংলগ্ন বাগান পরিদর্শন করছিলেন।হটাৎ করে তাঁর সামরিক সচিব আমেরিকার টুইন টাওয়ারের সন্ত্রাসী হামলার তথ্য দিলেন। পরেরদিন সকালে তিনি গভর্নর হাউজে একটা মিটিং এ ছিলেন তখন সামরিক সচিব এসে পারভেজ মোশাররফ কে জানালো আমেরিকার সেক্রেটারি অফ স্টেটস জেনারেল কলিন পাওয়েল ফোনে রয়েছেন,তিনি পারভেজ মোশাররফের সাথে কথা বলতে চান।কলিন পাওয়েলের দিক থেকে এতোটাই তাড়াহুড়ো ছিল যে মিটিং শেষ করা পর্যন্ত তার অপেক্ষা করার ধৈর্য ছিল না,মিটিং রেখেই পারভেজ মোশাররফ ফোনটি রিসিভ করেন।জেনারেল কলিন পাওয়েল কোন রাখঢাক না রেখে সরাসরিই বলে দিলেন,”তোমরা হয় আমাদের সাথে থাকবা নাহয় আমাদের বিরুদ্ধে”।মানে আমেরিকার সাথে না থাকার অর্থ হিসেবে তাদের বিরুদ্ধে থাকা ধরা নেওয়া হবে। পরেরদিন ফোনে মার্কিন সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী রিচার্ড আর্মিটেজের সাথে যোগাযোগ হয়।তিনিও পারভেজ মোশাররফ কে জানায়, “তোমাদেরকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে যে তোমরা আমেরিকার সাথে থাকবা নাকি সন্ত্রাসবাদীদের সঙ্গে ,যদি সন্ত্রাসবাদীদের সঙ্গে থাকার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে থাকো তাহলে বোমা হামলায় প্রস্তর যুগে ফিরে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত থেকো”।পারভেজ মোশাররফ এটাকে সর্বকালের সেরা কূটনীতিক শিষ্টাচার বহির্ভূত কথা হিসেবে উল্লেখ করেছেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে অব্যহত এমন হুমকীর পরিপ্রেক্ষিতে সিদ্ধান্ত গ্রহণে পারভেজ মোশাররফ যে বিষয়গুলো ভাবলেন সেটি হল- ★ পাকিস্তানের সামরিক শক্তি যা আমেরিকার তুলনায় নগন্য। ★পাকিস্তানের অর্থনৈতিক দুর্বলতা যা মার্কিন আক্রমনে টিকিয়ে রাখা সম্ভব না। ★পাকিস্তানের সামজিক বহুমাত্রিকতা রয়েছে যা যুদ্ধের ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধক। তাছাড়া জাতীয় বিষয়ের দিক থেকে তিনি যে বিষয়গুলো ভেবেছেন সেসব হল- ★পাকিস্তান মার্কিনীদের সহায়তা না করলে বৈরি রাষ্ট্র ভারত সহায়তা করবে এবং ইতোমধ্যে মাকির্ন যুক্তরাষ্ট্রকে ভারতীয় ঘাঁটি ব্যবহারের প্রস্তাবও দিয়ে দিয়েছে,ভারত হয়তো এই সুযোগে আমেরিকার সহায়তায় কাস্মীরকে বাগিয়ে নিবে। ★ একটি মুসলিম দেশ হিসেবে পাকিস্তানের পরমানু অস্ত্র নিয়েও আমেরিকা নতুন কোন টালবাহানা শুরু করতে পারে। ★ গত ৫০ বছরে তিল তিল করে গড়ে উঠা অর্থনৈতিক কাঠামো পুরোপুরি ভেঙ্গে পড়বে। ★তাছাড়া তালেবানদের জন্য পাকিস্তান কেন আত্মত্যাগ করবে? আত্মত্যাগ করার মতন তালেবান পাকিস্তানের জন্য এমন কী করেছে? এসব কিছু ভেবে দেশের বৃহত্তর স্বার্থে পারভেজ মোশাররফ তালেবান বিরোধী মার্কিন জোটে শরীক হন।

পরমাণু অস্ত্র ও আবদুল কাদির খানকে গৃহবন্দী

১৯৭৪ সালে ভারত সর্বপ্রথম পরমানু বোমা পরিক্ষামূলক বিস্ফোরণ ঘটায়।এর ব্যাখ্যায় ভারত বলে যে এটা হলো শান্তিপূর্ণ বিস্ফোরণ।সারা বিশ্ব কিছু লোক দেখানো হইচই করলেও সবাই ই এটা মেনে নেয়।কিন্তু চির বৈরি প্রতিবেশি পাকিস্তানে ব্যাপক উদ্বেগ আর উৎকন্ঠার জন্ম নেয়।তাই ১৯৭৫ সালে নেদারল্যান্ডসের ‘ইউরেনকা’ নামের একটি ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ স্থাপনায় কাজ করা বিশিষ্ট ধাতুবিদ পাকিস্তানী বংশদ্ভূত ড.এ কিউ খানকে নিজ দেশে(পাকিস্তানে) ফেরত আসার আহ্বান জানানো হয়।দেশের ডাকে তিনি পাকিস্তানে আসেন এবং সাথে করে’সেন্ট্রিফিউজ’এর কিছু ড্রইং নিয়ে আসেন।পাকিস্তান পরমাণু সমৃদ্ধকরণ স্থাপনায় তাঁর ব্লুপ্রিন্ট অনুযায়ী কাজ শুরু করে।সেই সময় থেকে পরবর্তী বছরগুলোতে প্রয়োজনীয় সকল কাঁচামাল ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে একটি আন্ডারগ্রাউন্ড নেটওয়ার্ক থেকে সংগ্রহ করা হয়।আর ভারতও নিজেদের পরমানু কাজ চালিয়ে যাচ্ছিলো সমানতালে।তবে এটা ঠিক ভারত পরমানু বোমায় অভিলাষী না হলে হয়তো পাকিস্তানও সে পথে হাঁটতো না।ভারতের চিন্তায় হয়তো আঞ্চলিক ক্ষমতা প্রদশর্ন, দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় নিজের আধিপত্য বিস্তারের একটা উচ্চাকাঙ্ক্ষা ছিল কিন্তু পাকিস্তানের ছিল চির বৈরি প্রতিবেশী থেকে আত্মরক্ষার জন্য।সে দৃষ্টিভঙ্গি থেকে বলা যায় ভারতের অভিপ্রায় ছিল আক্রমণাত্মক এবং আগ্রাসী আর পাকিস্তানের ছিল আত্মরক্ষামূলক। যদিও বিশ্বশক্তি পরমাণু কার্যক্রম থেকে বিরত থাকতে ক্রমাগতভাবে পাকিস্তানকেই চাপ প্রয়োগ করেছিল অথচ ভারতের ক্ষেত্রে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই বিশ্ববাসী  ছিল নিরব। ড. এ কিউ খান পরমাণু কর্মসূচীর গোপনীয়তা রক্ষার্থে রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ ব্যক্তির সাথে এই বিষয়টি নিয়ে সরাসরি যোগাযোগ রাখতেন কোন এজেন্সি বা সংস্থার মাধ্যমে নয়।অর্থ বরাদ্ধ ও প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা সেভাবেই আসতো।ফলে জুলফিকার আলী ভুট্টাে,জিয়াউল হক সরাসরিই তাঁর সাথে যোগাযোগ করতেন।তারপরে গোলাম ইসহাক খান ক্ষমতায় আসলে তিনি বেসামরিক লোক হওয়ায় যোগাযোগের দায়িত্বটি সেনা প্রধানের কাছে ন্যস্ত করা হয়। ১৯৯৮ সালের ১১ ও ১৩ মে ভারত যখন পাঁচটি পরমানু বোমার সফল বিস্ফোরণ ঘটায় তখন পাকিস্তান ১৯৯৮ সালের ২৮ ও ৩০ মে ছয়টি পরমাণু বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে সারা বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দেয়। পরবর্তীতে ড.এ কিউ খানের সাথে ইরান,  কোরিয়া,লিবিয়া সহ আরো কয়েকটি দেশ বা সংস্থার সাথে ইউরেনিয়াম পাচারে সম্পৃক্ত থাকার প্রমাণ পাওয়ার পরে পারভেজ মোশাররফের সরকার পাকিস্তানের জাতীয় স্বার্থে তাঁকে গৃহবন্দী করে। বইটিতে পাকিস্তানের জন্মের পর থেকে এই পর্যন্ত রাজনীতিতে সেনাবাহিনীর বারংবার হস্তক্ষেপ ও সেটার কারন,গনতন্ত্রের বিকাশ না হওয়ার বিষয়াবলী বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।তাছাড়া অর্থনৈতিকভাবে ভঙ্গুর রাষ্ট্র হওয়ার পিছনে কাস্মীর ও আফগানিস্তানের অস্থিতিশীলতাকে দায়ি করা হয়েছে।পারভেজ মোশাররফ নিজের এই বইটিতে নিজের সকল কার্যক্রমকেই একটা যৌক্তিকতার আলোকে ব্যাখ্যা প্রদান করেছেন। প্রথম জীবনে পারভেজ মোশাররফ বাংলাদেশী এক মেয়ের প্রেমে পড়েছিলেন কিন্তু মেয়ের পরিবার হুট করেই করাচি ছেড়ে বাংলাদেশ চলে আসায় সেটা আর সামনে এগোয়নি। ভারত ভাগের পর থেকে পাকিস্তানের রাজনীতি সম্পর্কে জানার ক্ষেত্রে বইটি অবশ্যই সহায়ক হবে বলে আমার বিশ্বাস।

প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।

Continue Reading

ইতিহাস

বাঙালীর স্বাধীনতা যুদ্ধের শুরু যেভাবে (প্রথম পর্ব)

Published

on

বাঙালীর স্বাধীনতা যুদ্ধের শুরু যেভাবে (প্রথম পর্ব)

ইয়াহিয়া খানের সামনে তাঁর পছন্দের পানীয় স্কটিশ হুইস্কি রাখা। লাস্যময়ী বিমানবালাটি তাঁর দিকে তাকিয়ে হাসছে। এই হাসি ইয়াহিয়ার পরিচিত। নারী সংস্পর্শের দীর্ঘ অভিজ্ঞতায় তিনি এখন মেয়েদের মুখ দেখেই বুঝতে পারেন তারা কি চায়। মেয়েটির বাসনা এই প্লেনেই পূরণ করে দেয়া যায় কিন্তু তিনি তা করবেন না। কারণ সর্বশেষ সঙ্গমের সময় তিনি নূরজাহানের মুখে কল্পনা করেছেন শামিমের মুখ।এক সাধারণ পুলিশ কর্মকর্তার কপট স্ত্রী বাঙালী এই নারী ইয়াহিয়ার ঘুম কেঁড়ে নেবে তিনি তা ভাবতে পারেন নি। সেদিনই তিনি মনে মনে প্রতিজ্ঞা করেছেন এরপর এই কামদন্ডটি যদি লেহনের কেউ সুযোগ পায় তবে সে হবে শামিম, মিসেস শামিম কে এন হুসেন। করাচি থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দিয়ে এসব কথা ভাবতে থাকেন অবিভক্ত পাকিস্তানের সর্বশেষ রাষ্ট্রপতি ইয়াহিয়া খান।তবে মধ্য আকাশে কামুক এক রাষ্ট্রপতি এসব ভাবতে থাকলেও কখনো তিনি ভাবেন নি আসন্ন এক বছরের মধ্যে তাঁর জীবন কিভাবে ওলট পালট হয়ে যাবে৷ একবছর পর তাঁর বিরুদ্ধে কমিশন বসানো হবে। রিপোর্ট প্রকাশিত হবে যেখানে প্রমাণ থাকবে তিনি অন্তত পাঁচ শতাধিক নারীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে মিলিত হয়েছেন। এসব হয়তো এ মুহুর্তে তাঁর কল্পনার বাইরে। ১৯৬৯ এর গণ-অভ্যুত্থানের পর সেনা শাসক আইয়ুব খান কে সড়িয়ে ক্ষমতার মসনদে বসেন ইয়াহিয়া খান। দিনে দিনে ইয়াহিয়া বিখ্যাত হয়ে ওঠেন বিশাল এক নারীবাজ হিসেবে৷ তিনি তার এই কীর্তি গোপন করার চেষ্টা করতেন না। নাইট ক্লাবে তাঁর রক্ষিতাকে বগলদাবা করে প্রকাশ্যে আবির্ভূত হতেন। বেশ্যার দালালদের ইয়াহিয়ার কাছে অবাধ যাতায়াত ছিল। সেসময় কুখ্যাত তবে মোহনীয় রমণীর পাল ঘুরে বেড়তো পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি ভবনের সর্বত্র। পুলিশেরা ভবনটির নাম দিয়েছিল কাঞ্জারখানা (পতিতালয়)। আর সেখানকার সামরিক সদর দপ্তরকে দঙ্গরখানা (পশুর আখড়া)। রাষ্ট্রনায়ক হবার সেই ষড়যন্ত্র সম্বলিত নাটকটি ইয়াহিয়ার চোখে ভাসছে। নারী দেহ থেকে ভাবনা সড়িয়ে চিন্তার দৃশ্যপটে আনলেন পাকিস্তানের সর্বোচ্চ ক্ষমতা অধিগ্রহণের সেই দিনটির কথা। মনে মনে বললেন, যে যাই বলুক না কেনো, রাজনীতির দাবা খেলায় আকস্মিকতা বলে কিছু নেই। সাধারণ মানুষ ক্ষমতার মঞ্চে যত অনিশ্চিত আর অবাক করা দৃশ্যই দেখুক না কেন সবকিছুই আগে থেকে ঠিক করা থাকে। যেমন বাঙালী এখন তাদের রাজনৈতিক জীবনে বিশাল অনিশ্চয়তার ছায়া দেখছে। শেখ মুজিব নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্টতা পেলেও সবাই আশ্চর্য হচ্ছে এটা দেখে যে একের পর এক ঘটনার আকস্মিকতা কিভাবে তাকে ক্ষমতা থেকে দূরে নিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু সবই যে ইয়াহিয়ার পরিকল্পনা মাফিক হচ্ছে তা কেউ বুঝতে পারছে না। একদিন তিনিও এমন কোনো পরিকল্পনার অংশ হয়েই পাকিস্তানের রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসীন হন। সাধারণ মানুষ এটাকে যতই আকস্মিক ভাবুক ইয়াহিয়া জানেন ঘটনাটি আসলে উল্টো।

বাঙালীর স্বাধীনতা যুদ্ধের শুরু যেভাবে (প্রথম পর্ব)

একাত্তরের ২২ ফেব্রুয়ারি ইয়াহিয়া হঠাৎ করে ডেকে বসলেন সব গভর্নর, সামরিক আইন প্রশাসক আর জেনারেলদের। সবাই মিলে ফন্দি এটেছে কিভাবে গণতান্ত্রিক নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করা আওয়ামীলীগকে ক্ষমতার বাইরে রাখা যায়। তাদের এই ফন্দির নাম দিয়েছে ‘অপারেশন ব্লিৎজ’। আর এই ফন্দির অংশ হিসেবেই তারা ব্যবহার করলো পাকিস্তান পিপলস পার্টির প্রধান জুলফিকার আলি ভুট্টোকে৷ ৭০এর নির্বাচনে পশ্চিম পাকিস্তানে কিছুমাত্র সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছিলো দলটি।কিন্তু এই সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে কেন্দ্র কিংবা পশ্চিম পাকিস্তান কোথাও যে নেতৃত্বে আসা যাবে না সেটা ভালোই জানতো ভুট্টো।কিন্তু ক্ষমতা লোভী ভুট্টো রাষ্ট্র শাসনের কাছাকাছি থাকার স্বপ্ন নিয়ে শেখ মুজিবের ধানমন্ডির বাসায় পৌঁছান। খোলামেলা জানান পররাষ্ট্র মন্ত্রী হবার উন্মেষের কথা।কিন্তু শত দেনদরবারেও শেখ মুজিবের কাছ থেকে আশাবাদী হবার মতো কিছু না পেয়ে হাজির হন ইয়াহিয়া’র কাছে। আর ইয়াহিয়াও সুযোগ বুঝে তাকে ‘অপারেশন ব্লিৎজ’ এর অংশ করে নেন। ভুট্টোকে দিয়ে ইয়াহিয়া তাঁর পরিকল্পনা মাফিক একটি ঘোষণা দেওয়ান। ঘোষণায় ভুট্টো বলেন, আসন্ন ৩ মার্চ ঢাকায় অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় অধিবেশনে পশ্চিম পাকিস্তান থেকে কেউ যেতে পারবে না। তাঁর সঙ্গে আলোচনা না করে কেউ পশ্চিম পাকিস্তান থেকে নির্বাচিত প্রতিনিধিদের নিয়ে বসতে পারবে না। ভুট্টোর ঘোষনায় পরিস্থিতি ঘোলাটে হলো। পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার ২৩ বছরের মাথায় গণতন্ত্রের পথে যে যাত্রা শুরু করেছিল দেশটি তা অনিশ্চয়তার ধুম্রজালে আটকে পড়ে।

এদিকে, ইয়াহিয়া খানের তো নীল নকশা করাই ছিল। সেটা অনুযায়ী যখন ভুট্টোর কাছে জানতে চাওয়া হলো পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে এবং রাজনৈতিক সমাধানের জন্য তিনি কোন সুপারিশ করছেন কিনা? তখন তোঁতা পাখির মতো ইয়াহিয়ার শেখানো বুলি আওড়ালেন তিনি। ২৮ ফেব্রুয়ারি ভুট্টো জানালেন, যদি জাতীয় পরিষদের অধিবেশন আগামী ৪মাস পর অনুষ্ঠিত হয় তবেই তিনি রাষ্ট্র ক্ষমতা হস্তান্তরের শান্তিপূর্ণ প্রক্রিয়ার ব্যাপারে শেখ মুজিবের সঙ্গে আলোচনায় যাবেন৷ অন্যথায় অনর্থ ঘটবে সারা পাকিস্তানে। যদিও ভুট্টোর পক্ষে সারা পাকিস্তান জুড়ে কেন খোদ পশ্চিম পাকিস্তানেই একটা মশা মারার ক্ষমতার সংকট ছিল। তবুও সাজানো দাবার চাল হিসেবে ভুট্টোর অবাস্তব হুংকার আমলে নিয়ে ইয়াহিয়া অধিবেশন স্থগিত করলেন। এমন ঘোষণায় পূর্ব পাকিস্তান তো বটেই পশ্চিম পাকিস্তানের বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ভুট্টো ও ইয়াহিয়ার ওপর ক্ষিপ্ত হলো।পশ্চিমের মালিক গোলাম জিলানি বললেন, “এখন আমরা এমন একটা অবস্থার সম্মুখীন হয়েছি, যখন পাকিস্তানকে রক্ষা করতে হলে অবিলম্বে সংখ্যাগুরু (আওয়ামীলীগ) দলের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর ছাড়া আর কোন পথ নেই “। বেলুচিস্তান ন্যাপ পার্টি বললেন, ” জাতীয় সংসদের প্রস্তাবিত অধিবেশন অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত ঘোষণা অবাঞ্ছিত ও অগণতান্ত্রিক “। এসব কথায় কান না দিয়ে ইয়াহিয়া তাঁর পরিকল্পনা অনুযায়ী এগোতে লাগলো। সে অনুযায়ী ৫৭ ব্রিগেড এক্স ১৬ ডিভিশন সৈন্য পশ্চিম পাকিস্তান থেকে ঢাকায় রওনা করিয়ে দেওয়া হয়। ইয়াহিয়া বললেন, ” ত্রিশ লাখ বাঙালিকে হত্যা করো। বাকিরা আমাদের হাত থেকে খাবে “। একটা রক্তপাত জরুরী। পাকিস্তান দ্বিখন্ডিত করার ষড়যন্ত্র ভাসিয়ে নিয়ে যাবে বাঙালির রক্তের বন্যা।
বাঙালীর স্বাধীনতা যুদ্ধের শুরু যেভাবে (প্রথম পর্ব)
এদিকে মার্চের শুরু থেকেই ফুঁসলে ওঠে পাকিস্তানের এ প্রান্তের রাজনীতি সচেতন মানুষ। ১লা মার্চ থেকেই ঢাকার রাস্তায় নেমে পড়ে আওয়ামী লীগ। ৩মার্চ দেশব্যাপী হরতাল ঘোষণা করা হয়।এছাড়া জানানো হয় ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) আয়োজিত জনসভায় চূড়ান্ত কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।সচেতন শিক্ষার্থী সমাজ গঠন করে “স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ”। তারা ” জয় বাংলা “, “বীর বাঙ্গালী অস্ত্র ধরো/বাংলাদেশ স্বাধীন করো “, ” তোমার আমার ঠিকানা / পদ্মা মেঘনা যমুনা ” ইত্যাদি স্লোগানে স্লোগানে ঢাকার রাজপথ প্রকম্পিত করে তোলে। রাজধানীর মানুষের মাঝে এক নতুন রাজনৈতিক চেতনাগত বিদ্যুৎ খেলে যায়। যার দরুন সামরিক জান্তা সরকার কারফিউ জারি করতে বাধ্য হয়। মার্চের দ্বিতীয় দিন এক এক অভূতপূর্ব ঘটনার সাক্ষী হয় পুরো পাকিস্তানবাসী। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কলাভবন প্রাঙ্গনে ছাত্রসভায় স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলন করা হয়। বাংলাদেশের মানচিত্রখচিত ওই পতাকা সর্বপ্রথম উত্তোলন করেছিলেন ছাত্রলীগের তৎকালীন নেতা আ স ম আব্দুর রব।বাংলাপিডিয়া বলে তখন ছাত্র সমাবেশের নেতৃত্বে ছিলেন নূরে আলম সিদ্দিকী, আব্দুল কুদ্দুস মাখন, শাহজাহান সিরাজ, আ স ম আব্দুর রব প্রমুখ। একীভূত পাকিস্তানের মাটি দ্বিখণ্ডিত করে বাংলার ছাত্র সমাজ প্রথম সরাসরি কায়েমি সরকারের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে যায়। তবে শেখ মুজিব তখনও সাবধানে চাল দিচ্ছিলেন। কারণ তিনি বুঝে গিয়েছিলেন কিছু একটা গোলমাল আছে। এখনই হঠকারী কিছু না করে বুঝেশুনে সামনে এগোতে হবে। অন্যথায় যেকোনো চালের ভুলে পুরো বাঙালির স্বাধিকারের যে স্বপ্ন তিনি ৬৬সালে ৬দফা প্রস্তাবনার মাধ্যমে দেখেছেন তা ধুলোয় মিশে যাবে।
বাঙালীর স্বাধীনতা যুদ্ধের শুরু যেভাবে (প্রথম পর্ব)
ঢাকার পল্টনে নূরে আলম সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে ছাত্রলীগ আয়োজিত জনসভায় স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশের প্রস্তাবিত জাতীয় সংগীত পরিবেশন ও জাতীয় পতাকা প্রদর্শিত হয় মার্চের ৩ তারিখ। ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের উদ্যোগে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার ঘোষণাপত্র প্রচার করা হয় ঐ দিন।পরদিন “রেডিও পাকিস্তান ঢাকা”র পরিবর্তে ” ঢাকা বেতার কেন্দ্র ” নামে অনুষ্ঠান সম্প্রচার শুরু হয়। বাঙালীর চেতনায় স্বাধীনতা নামক শব্দটি ধীরে ধীরে জায়গা নেওয়া শুরু করে। মার্চের ৫ তারিখ ঢাকার নিউ মার্কেট এলাকায় মোজাফফর আহমদের নেতৃত্বে ন্যাপের জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখান থেকে তারা সরকারের বিরুদ্ধে আওয়ামীলীগের চলমান আন্দোলন – সংগ্রামকে সমর্থন জানায়। এই ঘটনার পর ইয়াহিয়ার সরকারের বিরোধিতায় পূর্ব পাকিস্তানে বৃহৎ রাজনৈতিক বলয় সৃষ্টির সূচনা হয়। পাঁচদিন ব্যাপী আওয়ামীলীগের আন্দোলন আর পূর্ণ বিরোধী রাজনৈতিক শক্তির উত্থানে কিছুটা টলে যায় ইয়াহিয়া। তাঁর পূর্ব পরিকল্পনা ঠিক রাখতে তড়িঘড়ি করে নতুন সিদ্ধান্ত সংযোজন করেন তিনি।মার্চের ৬ তারিখ হঠাৎ ঘোষণা দেন ২৫ মার্চ ঢাকায় জাতীয় সংসদের অধিবেশন বসবে৷ শেখ মুজিবকেও ধন্ধে ফেলার জন্য তাকে নমনীয় হতে আহবান জানান ইয়াহিয়া। ঘোষণা দেন, “আমি আশ্বাস দিতে পারি যে জনগণের কাছে শেখ মুজিবের দেওয়া ওয়াদা পূরণ হতে পারে “। তবে শেখ মুজিবের মনে ইতোমধ্যে বিভিন্ন সন্দেহ জাগতে শুরু করে। পাকিস্তানি জান্তা সরকারের বিরুদ্ধে তাকে সশস্ত্র সংগ্রামের প্রস্তুতি নিতে হতে পারে বলেও ধারণা জন্মায় তার মনে। এমন সংগ্রাম আবশ্যক হলে তাতে যে ধরনের প্রস্তুতি এবং সরঞ্জামের মজুদ থাকতে হয় তা বাঙালির ছিল না সেকথা ভালোই জানতেন তিনি। তাই এক্ষেত্রে বাইরের সহযোগিতা পাওয়া যায় কিনা সেটা ভাবতে শুরু করেন তিনি৷ সেই ভাবনা থেকেই তাঁর বিশ্বস্ত সহচর, তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামীলীগের সম্পাদক তাজউদ্দিন আহমেদ কে কাজে লাগান তিনি।গোপনে তাজউদ্দিনকে সাক্ষাৎ করতে পাঠান ঢাকাস্থ ভারতীয় ডেপুটি হাইকমিশনার কে.সি.সেনগুপ্তের সঙ্গে। শেখ মুজিবের এই সিদ্ধান্তটি ছিল তাঁর রাজনৈতিক দূরদর্শিতার ফসল। তাই বলা যায় মার্চের প্রথম সপ্তাহে তাজউদ্দিনের ভারতীয় হাইকমিশনের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যমেই বাঙালির স্বাধিকার প্রশ্নে ভারতীয় চিন্তা ভাবনা শুরু হয়।

বাঙালীর স্বাধীনতা যুদ্ধের শুরু যেভাবে (প্রথম পর্ব)

এদিকে বাংলার ছাত্র – জনতার চাপ ছিল শেখ মুজিবের ওপর যেন তিনি কঠিন কোন সিদ্ধান্ত নেন৷ পূর্ব ঘোষিত ৭ই মার্চের জনসভার তারিখও সামনে চলে আসে৷ ইয়াহিয়া এবং তাঁর সরকারেরও যেন দাবার চালগুলো কেমন ওলট পালট হওয়া শুরু করে। তাই সে দারস্থ হয় তাঁর তৎকালীন সবচেয়ে আপন মিত্র আমেরিকার। ৭ই মার্চ সকালে পাকিস্তানে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত ফারল্যান্ড উপস্থিত হয় শেখ মুজিবের বাড়িতে৷ স্বল্পকালীন একান্ত বৈঠকে সহজ ভঙ্গিতে জানিয়ে দেন, পূর্ব বাংলা স্বঘোষিতভাবে স্বাধীন হলে আমেরিকা তা সমর্থন করবে না “। বলাবাহুল্য তৎকালীন ভূরাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে আমেরিকাই ছিল এই উপমহাদেশের একচ্ছত্র অভিভাবক। সেই অভিভাবকের এমন এককেন্দ্রিক আচরণ ১৯৬৬ সাল থেকে পাকিস্তানি শোষণ থেকে মুক্তির স্বপ্ন দেখা বাঙালির আপৎকালীন বাঁধা হয়ে দাঁড়াবে সেটাই স্বাভাবিক। আর এই ঘটনা থেকেই উপমহাদেশীয় রাজনীতিতে পরবর্তীকালে বিশ্বের অপর পরাশক্তি রাশিয়ার প্রবেশগম্যতার প্রেক্ষাপট শুরু হয়। যাহোক বৈশ্বিক রাজনীতির এমন স্বার্থপর আচরণে খানিক বিচলিত আমাদের বঙ্গবন্ধু দুপুরে যান রেসকোর্স ময়দানে। এই ময়দান থেকেই দরাজ কন্ঠে ঘোষণা দেন, ” তোমাদের যা কিছু আছে তাই নিয়ে প্রস্তুত থাকো।রক্ত যখন দিয়েছি, রক্ত আরো দেবো। এই দেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়ব ইনশাআল্লাহ “। ভাষনের শেষ বেলায় ঘোষণা দেন সেই দীর্ঘ প্রতীক্ষ্য শব্দ চয়ন। বছরের পর বছর পশ্চিম পাকিস্তানী শাসকবৃন্দর শোষণ থেকে রেহাই পেতে আপামর বাঙালি যে কথা তাদের বঙ্গবন্ধুর কাছ থেকে শুনতে চাচ্ছিলেন তা তিনি বলে দেন মাত্র দুই লাইনে। মনে হয় যেন হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালার বাঁশির সুরে সবার কানে বেজে ওঠে, ” এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম “। (চলবে…)

তথ্যসূত্র :

১/ দ্য ক্রুয়েল বার্থ অব বাংলাদেশ : আর্চার কে ব্লাড।
২/ দ্য আলটিমেট ক্রাইম : সরদার মুহাম্মদ চৌধুরী।
৩/ ম্যাসাকার : রবার্ট পেইন৷
৪/ জেনারেল ও নারীরা : আনিসুল হক।
৫/মূলধারা একাত্তর : মঈদুল হাসান।
৬/ বাংলাদেশের রাজনৈতিক ঘটনাপঞ্জি : মুহাম্মদ হাবিবুর রহমান।
৭/ নাগরিকদের জানা ভালো : মুহাম্মদ হাবিবুর রহমান।

লেখক : শফিক মুন্সি, সাংবাদিক ও কলামিস্ট।

প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।

Continue Reading

সর্বাধিক পঠিত